সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট ভেঙে ‘গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিল’র আত্মপ্রকাশ


জাগো প্রহরী :
বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট আগেও ভেঙে দুই ভাগে বিভক্ত ছিল। এখন ‘ভাঙা’ অংশ আবারও ভাঙলো। নতুন এই ভাঙা অংশের নাম দেওয়া হয়েছে ‘গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিল’।

শনিবার (১৬ জানিয়ারি) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যানটিনে নতুন অংশের নাম ঘোষণা করা হয়।

মূল দল বাসদও তিন টুকরো এখন। বাসদের ভাঙনের জন্যই এটির ছাত্র সংগঠনের মধ্যেও ভাঙন দেখা যায়। মূল বাসদের নেতৃত্বে রয়েছেন খালেকুজ্জামান। আর দ্বিতীয় ভাগের (বাসদ মার্কসবাদী) অংশের নেতৃত্বে মুবিনুল হায়দার চৌধুরী এবং বাসদ (মার্কসবাদী পাঠচক্র ফোরাম) এর নেতৃত্বে রয়েছেন শুভ্রাংশু চক্রবর্তী।

সামরিক স্বৈরাচারবিরোধী ঐক্যবদ্ধ ছাত্র-আন্দোলনের পটভূমিতে ১৯৮৪ সালের ২১ জানুয়ারি সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট আত্মপ্রকাশ করেছিল। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট জোটবদ্ধভাবে এবং এককভাবে শিক্ষা ও গণতন্ত্রের সংগ্রামে সাহসী ভূমিকা পালন করেছে। কিন্তু সংগঠনের অভ্যন্তরে আদর্শিক ও সাংগঠনিক (নেতৃত্ব নিয়ে) বিভিন্ন বিষয়ে গুরুতর মতপার্থক্যের কারণে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট এখন তিনটি ধারায় বিভক্ত। ভেঙে যাওয়া অংশগুলো হলো সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট (মার্কসবাদী) এবং নতুন আত্মপ্রকাশ পাওয়া অংশ গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিল।

২০ সদস্যের নতুন কমিটি ঘোষণা:

সংবাদ সম্মেলনে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের (মার্কসবাদী) একাংশের আহ্বায়ক তাজ নাহার রিপন নতুন সংগঠনের নাম ঘোষণা করেন। এ সময় নতুন কমিটি ঘোষণা করেন তিনি। গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিলের সভাপতি আরিফ মঈনুদ্দীন, সহ-সভাপতি ছায়েদুল হক নিশান, সাধারণ সম্পাদক উজ্জল বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক ফাহিম আহমেদ চৌধুরী, দফতর সম্পাদক সাদ্দাম মাহমুদ, অর্থ সম্পাদক এ্যানি চৌধুরি, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক রাজেশ্বর দাস গুপ্ত, পরিবেশ ও জলবায়ু বিষয়ক সম্পাদক সুজয় বিশ্বাস শুভ, আদিবাসী ও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক সুজন তঞ্চঙ্গ্যা, স্কুল বিষয়ক সম্পাদক তানজিনা বেগম। কমিটির আরও ১০ সদস্যসহ ২০ জনের কমিটি ঘোষণা করা হয়।

জাগো প্রহরী/এফজে

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য