প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন নিয়ে ভেঙে দেয়া হলো রাওয়ার কার্যনির্বাহী পরিষদ


জাগো প্রহরী :
রিটায়ার্ড আর্মড ফোর্সেস অফিসার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন (রাওয়া) এর কার্য নির্বাহী পরিষদ ভেঙে দেয়া হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) চার সদস্যের তত্ত্বাবধায়ক মন্ডলি গঠন করা হয়েছে। এর আহ্বায়ক করা হয়েছে সেনা সদরের এসটি পরিদপ্তর এর পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হাসান জাহাঙ্গীর পিএসসি’কে। আগামী ১৯শে ডিসেম্বর রাওয়ার এজিএম ও নির্বাচনের দিন ধার্য ছিলো। এর আগেই সমাজসেবা অধিদপ্তরের আদেশবলে এ উদ্যোগ নেয়া হলো। এদিকে হুট করে এ সিদ্ধান্ত হওয়ার পর প্রতিষ্ঠানটির প্রায় ৫ হাজার সদস্যকে নোটিশের মাধ্যমে বিষয়টি জানানো হয়। রাওয়া চেয়ারম্যান স্বাক্ষরিত ওই নোটিশে বলা হয়েছে-সম্মানিত সদস্যবৃন্দ,আপনাদের সদয় অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, ১৪ই ডিসেম্বর মহাপরিচালক, সমাজ সেবা অধিদপ্তর, ঢাকা কর্তৃক স্বাক্ষরিত পত্রবলে রাওয়ার বর্তমান কার্য নির্বাহী পরিষদকে অবিলম্বে (অদ্য ১৫ই ডিসেম্বর ২০২০ হতে) সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হাসান জাহাঙ্গির, পিএসসি, পরিচালক, এসটি পরিদপ্তর, সেনা সদরকে আহ্বায়ক করে চার সদস্য বিশিষ্ট তত্ত্বাবধায়ক মন্ডলী গঠন করা হয়েছে। রাওয়া সংশ্লিষ্টরা জানান, হঠাৎ করেই প্রতিষ্ঠানটিতে বড় ধরনের ঘটনা ঘটে গেলো।

অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তাদের জন্য গঠিত এই ওয়েলফেয়ারে অতীতে কখনও কর্মরত কোন সামরিক কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করেননি। 

তারা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদন নিয়ে সেনা সদর এ নিয়ে একটি চিঠি ইস্যু করে। ওই চিঠির আলোকে তত্ত্বাবধায়ক মন্ডলী গঠন করা হয়েছে। চার সদস্যের মধ্যে অপর তিন সদস্য হলেন সেনাসদরে কর্মরত একজন মেজর, সামরিক ভূমি অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তা (সিভিলিয়ান) ও সদ্য বরখাস্ত করা কার্যনির্বাহী পরিষদের মেম্বার-এন্টারটেনমেন্ট মেজর (অব) ইমতিয়াজ ইসলাম। 

এ প্রসঙ্গে বরখাস্তকৃত কার্যনির্বাহী কমিটির সেক্রেটারি জেনারেল লে. কর্ণেল (অব:) এ এম মোশারফ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, সমাজসেবা অধিদপ্তরের চিঠির মাধ্যমে ওই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এর বাইরে বিষয়টি নিয়ে আমি আর কোন মন্তব্য করতে চাই না। 

একই প্রসঙ্গে কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য(গেইম এন্ড স্পোর্টস) ফ্লাইট লে.(অব:) মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ ভুঁইয়া সাংবাদিকদেরকে বলেন, আর মাত্র কয়দিন পরই এজিএম ও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার নির্ধারিত দিন ছিলো। তার আগেই এ ধরনের কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হলো। এখন শুনছি তত্ত্বাবধায়ক মন্ডলী গঠন করে এর গঠনতন্ত্র পরিবর্তন করা হবে। অথচ আগামী ১৯শে ডিসেম্বর রাওয়ার এজিএমে বিষয়টি উত্থাপন করা যেতো। 

তিনি বলেন, গঠনতন্ত্র পরিবর্তনের অধিকার রয়েছে সাধারণ সদস্যদের। তাদের মতামত নিয়েই এটা করা সমীচিন হতো। যাই হোক যেটা হয়েছে সেটা আমাদেরকে হতাশ করেছে। কিছু ভূল বোঝাবুঝি থেকে রাওয়ার মতো প্রতিষ্ঠান নিয়ে এ ধরনের উদ্যোগ নেয়া হলো। 

সংশ্লিষ্টরা জানান, কার্যনির্বাহী পরিষদের যে ১৫ জন অবসরপ্রাপ্ত সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছেন-চেয়ারম্যান মেজর খোন্দকার নুরুল আফসার, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এমডি মাহবুবুল আলম, ভাইস চেয়ারম্যান লে. কর্নেল খ মুস্তাফিজুর রহমান, সেক্রেটারি জেনারেল লে. কর্নেল এ এম মোশারফ হোসেন, কোষাধ্যাক্ষ মেজর আব্দুস সালাম, যুগ্ম-সম্পাদক মেজর মাশরুর এইচ সিদ্দিকী, সদস্য(ডেভেলপমেন্ট) লে. কর্নেল আতিকুল হক চৌধুরী, সদস্য (গেম এন্ড স্পোর্টস) ফ্লাইট লে.মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ ভুঁইয়া, সদস্য (এন্টারটেইনমেন্ট) মেজর ইমতিয়াজ ইসলাম, সদস্য (ক্যাটারিং) মেজর ইকবাল শাহরিয়ার, সদস্য(বেভারেজ) মেজর এমডি শামীম হাসান, সদস্য(লাইব্রেরী এন্ড পাবলিকেশন্স) কর্নেল খালেদা খানম, সদস্য (ওয়েলফেয়ার) লে. কর্নেল এমডি মোয়াজ্জেম হোসেন, সদস্য(জেনারেল-১) মেজর একে এম মুসা ও সদস্য ( জেনারেল-২) লে. কর্নেল এসকে আকরাম আলী।

উল্লেখ্য রাওয়ার গঠনতন্ত্রে বলা হয়েছে, রাওয়া সম্পূর্ণরূপে একটি অরাজনৈতিক সেবামূলক প্রতিষ্ঠান যাহা সশস্ত্র বাহিনী অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের কল্যাণার্থে প্রতিষ্ঠিত। এতে আরও বলা হয়েছে, অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্র বাহিনীর কর্মকর্তাদেরকে অত্র সংস্থার মাধ্যমে বন্ধুত্বপুর্ণ পরিবেশে ভ্রাতৃত্ববোধের এবং সহযোগিতার বন্ধনে আবদ্ধ করা, যাহাতে প্রত্যেক কর্মকর্তা ব্যক্তিগত তথা সমষ্টিগতভাবে সম্মানের সহিত সুন্দরভাবে অবসর জীবন অতিবাহিত করতে পারেন।     

জাগো প্রহরী/এফআর

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ