চোরাইপথে হেফাজতের কমিটি হলে আলেমরা মানবে না : মুফতি ফয়জুল্লাহ


জাগো প্রহরী :
আগামীকাল রবিবার (১৫ নভেম্বর) চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসায় হেফাজতে ইসলামের প্রতিনিধি সম্মেলনে সংগঠনটির মূলধারাকে বাদ দিয়ে চোরাইপথে কমিটি গঠন করা হলে তা বাংলাদেশের আলেম সমাজ মেনে নেবে না বলে ঘোষণা করেছেন হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম-মহাসচিব মুফতি ফয়জুল্লাহ।

শনিবার (১৪ নভেম্বর) বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘শাইখুল ইসলাম, শহীদ আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রহ.) প্রতিষ্ঠিত ঈমানি সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ-এর বিরুদ্ধে মহল বিশেষের ষড়যন্ত্র উন্মোচন’ সংক্রান্ত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

মুফতি ফয়জুল্লাহ বলেন, আজ হেফাজতের ঐতিহ্য ভূলুণ্ঠিত করে যারা হেফাজতকে একটি চিহ্নিত মহলের ক্রীড়নকে পরিণত করতে চাচ্ছে, অচিরেই জাতির সামনে তাদের মুখোশ উন্মোচিত হবে ইনশাল্লাহ। হেফাজতের মূলধারাকে বাদ দিয়ে যারা হেফাজতের একজন পদত্যাগী নেতার সাইনবোর্ড ব্যবহার করে এই ঈমানি সংগঠনকে দ্বিখণ্ডিত করার ষড়যন্ত্র করছে এদেশের ধর্মপ্রাণ জনগণ বিশেষত উলামায়ে কেরামরা তা কোনোদিনই মেনে নেবে না। আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রহ.)-এর এই আমানত রক্ষা করার জন্য প্রয়োজনে সবকিছু উৎসর্গ করতে তারা প্রস্তুত রয়েছে।

‘হেফাজতের নিয়ন্ত্রণে কিছু চরমপন্থী’

লিখিত বক্তব্যে মুফতি ফয়জুল্লাহ আরও বলেন, ‘আমরা মনে করি, শাইখুল ইসলাম শহীদ আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রহ.) কে পরিকল্পিতভাবে শহীদ করে বিভিন্ন কওমি মাদ্রাসা এবং হেফাজতে ইসলামকে একটি চিহ্নিত মহল তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিজেদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের গভীর ষড়যন্ত্র করছে।’

‘এসবের নেতৃত্বে মূলত হেফাজতের গুটিকয়েক নেতা এবং চিহ্নিত কিছু চরমপন্থী রয়েছে’ দাবি করে মুফতি ফয়জুল্লাহ বলেন, ‘হাটহাজারী মাদ্রাসায় আন্দোলনের নামে আল্লামা শফী (রহ.)-এর রুম ভাঙচুর এবং তার ওপর মানসিক চাপ, অসৌজন্যমূলক আচরণ, মেডিসিন নিতে বাধা প্রদান, তার চিকিৎসায় ব্যাঘাত ঘটানো এসবই ছিল তাদের পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র। এসবের মূল হোতারা এ সম্পর্কে অজ্ঞ বলে মিডিয়ার সামনে যে হাঁকডাক ছাড়ছেন তা সত্যের অপলাপ মাত্র।’

আল্লামা শফীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি

লিখিত বক্তব্যে আরও বলা হয়, ‘আল্লামা শফীকে পরিকল্পিতভাবে শহীদ করা হয়েছে, এ কথা জানার পরও এই চরম ও উগ্রপন্থীদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না। মনে রাখতে হবে, সত্যকে কখনও ধামাচাপা দেওয়া যায় না। সত্য একদিন উদ্ভাসিত হবেই। বাংলার জমিনে শহীদ আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহ.-এর অস্বাভাবিক শাহাদতের বিচার একদিন হবেই। আমরা এ বিষয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানাচ্ছি।’

‘একতরফা কাউন্সিল আলেমরা মানবে না’

লিখিত বক্তব্যে মুফতি ফয়জুল্লাহ বলেন, ‘স্পষ্টভাবে বলছি, একক সিদ্ধান্তের মাধ্যমে হেফাজতের কাউন্সিলের নামে একতরফাভাবে কাউকে দায়িত্ব দিলে তা এদেশের ওলামায়ে কেরাম মেনে নেবে না। নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে সর্বোচ্চ আমীর কর্তৃক গঠিত কমিটির মাধ্যমে হেফাজতের কাউন্সিলে সর্ব সমর্থিত ব্যক্তিত্বদের নেতৃত্বে আনলেই দেশবাসীসহ উলামায়ে কেরাম ওই নেতৃত্বকে গ্রহণ করবে।’

‘এছাড়া ভিন্ন পথে কোনও কিছু করার ষড়যন্ত্র করা হলে দেশবাসী তা রুখে দেবে ইনশাআল্লাহ’ যোগ করেন তিনি। বলেন, ‘তাই আমরা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গকে নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে শায়খুল ইসলাম (রহ.)-এর গঠিত হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটির মাধ্যমে পদক্ষেপ গ্রহণ করার আহ্বান জানাচ্ছি। চোরাইপথে কোনও কিছু করা হলে তার দায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের ওপরই বর্তাবে।’

সংবাদ সম্মেলনে মুফতি ফয়জুল্লাহ অভিযোগ করেন, ‘আমরা মনে করি, হেফাজতের মূল প্রতিষ্ঠাতা, উদ্যোক্তা, যাদের শ্রম ও ঘামে হেফাজতে ইসলাম এই পর্যন্ত এসেছে, তাদেরকে বাদ দিয়ে নতুন কতিপয় স্বার্থান্বেষী ব্যক্তি ও মহলের এজেন্ডা বাস্তবায়নের চক্রান্ত কওমি অঙ্গনের জন্য অদূর ভবিষ্যতে ভয়াবহ বিপর্যয় ডেকে আনবে।’

‘আর যারা আবেগ তাড়িত হয়ে এসব ষড়যন্ত্রের পিছনে ছুটাছুটি করছেন, তাদের উদ্দেশে বলবো, আপনারা আবেগের বশবর্তী হয়ে দেশ ও উম্মাহর ক্ষতি হয় এমন কাজে জড়াবেন না।’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা একে এম আশরাফুল হক, মাওলানা আলতাফ হোসেন, জিয়াউল হক মজুমদার, মুজিবর রহমান, মাওলানা মনসুরুল হক,মুফতি নাসির উদ্দিন,মুফতি ফখরুল ইসলাম প্রমুখ।

জাগো প্রহরী/গালিব

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য