ঢাকায় ফ্রান্স সরকারের বিরুদ্ধে বিশাল মিছিল, দূতাবাস ঘেরাও আটকাল পুলিশ


জাগো প্রহরী :
মহানবী হজরত মুহাম্মাদ (সা.)–কে নিয়ে ফ্রান্সে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন এবং তার রেশ ধরে দেশটির প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁর ‘ইসলামবিদ্বেষী’ অবস্থানের প্রতিবাদে মঙ্গলবার বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় সমাবেশ করেছে ইসলামী আন্দোলন। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের পর ফরাসি দূতাবাস ঘেরাওয়ের উদ্দেশ্যে একটি মিছিল বের করে সংগঠনটির নেতা–কর্মীরা। 

এই মাসের শুরুতে ম্যাক্রোঁ ইসলামকে সঙ্কটাপন্ন ধর্ম হিসেবে মন্তব্য করেন এবং ফ্রান্সে ইসলামি বিচ্ছিন্নতাবাদ দমন করতে ১৯০৫ সালের একটি আইনকে নতুন করে ফিরিয়ে আনার ঘোষণা দেন।

সমাবেশে দলের আমির ও চরমোনাইয়ের পীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করিম ফ্রান্সের বিরুদ্ধে জাতীয় সংসদে নিন্দা প্রস্তাব গ্রহণ করতে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন। 

ফরাসি প্রেসিডেন্টের এই অবস্থানের প্রতিবাদে আরব উপসাগরীয় অঞ্চল–সহ মুসলিম বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ফ্রান্সের পণ্য বর্জনের হিড়িক পড়ে গিয়েছে। অনেক খ্যাতনামা চেইন শপসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ফরাসি পণ্য বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছে। 

ইসলামী আন্দোলনের নেতা–কর্মীরা ঢাকায় ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি উপলক্ষ্যে বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেটে জমায়েত হন। তারপর মিছিল নিয়ে পল্টন মোড়, বিজয়নগর, কাকরাইল হয়ে শান্তিনগর পৌঁছলে পুলিশ কাঁটাতারের ব্যারিকেড দিয়ে তাঁদের আটকে দেয়। সেখানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন দলের আমির মুফতি সৈয়দ রেজাউল করিম। মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার প্রতিবাদে ফ্রান্সের পণ্য বর্জনে একাত্মতা ঘোষণা করেন তিনি ।

মুফতি সৈয়দ রেজাউল করিম বলেন, ‘‌তাঁর এসব মন্তব্যের জন্য প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁকে মুসলমানদের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে এবং বাংলাদেশ সরকারকে সংসদে প্রস্তাব এনে ফ্রান্সের নিন্দা করতে হবে।’‌

এদিকে, ম্যাক্রোঁর ‘ইসলামবিদ্বেষী’ অবস্থানের প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সাধারণ ছাত্রদের ব্যানারে বিক্ষোভ ও সমাবেশ করেছে শিক্ষার্থীরা। এএফপি 

জাগো প্রহরী/এফজে

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য