ধর্ষণ প্রবণতা রোধ করতে ভারতীয় চলচ্চিত্র নিষিদ্ধের দাবি ওলামা লীগের


জাগো প্রহরী :
 দেশে ধর্ষণ প্রবণতা রোধ করতে ভারতীয় চলচ্চিত্র ও পর্নোগ্রাফি নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগ। নেতারা বলেন, এদেশে এতদিন এতো ধর্ষণ প্রবণতা না থাকলেও এখন এটা মহামারিরূপে ব্যাপকতা ছড়াচ্ছে। এর পেছনে মূল কারণ হচ্ছে স্মার্টফোনের মাধ্যমে ভারতীয় চলচ্চিত্রের প্রচার ও প্রসার এবং পর্নোগ্রাফি। কাজেই এই ধর্ষণ প্রবণতা রুখতে হলে ভারতীয় চলচ্চিত্র, পর্নোগ্রাফি ইত্যাদি অবিলম্বে নিষিদ্ধ করতে হবে।

সোমবার (১২ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ১২ দফা দাবিতে ওলামা লীগের একাংশসহ সমমনা ১৩ দল আয়োজিত মানববন্ধনে নেতারা এসব কথা বলেন।

ওলামা লীগের একাংশের সভাপতি আল্লামা আখতার হুসাইন বুখারীর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসান শেখ শরীয়তপুরী, আব্দুস সাত্তার, শওকত আলী শেখ ছিলিমপুরী, আবু বকর সিদ্দিক, শোয়েব আহমেদ গোপালগঞ্জী, আব্দুল জলিল, আব্দুস সবুর মিয়া, মুজিবুর রহমান আল মাদানী, শাহ আলম ফরাজী, আব্দুল বারী, আসাদুজ্জামান আল কাদেরী, খোরশেদ আলম রেজভী, নোমান চৌধুরী, আল আমীন প্রমুখ। মানববন্ধন শেষে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

সংগঠনের ১২ দফা দাবিতে রয়েছে- মহানবীর (স.) প্রতি মানহানিকর সব বিষয় নিষিদ্ধ করে দোষী ব্যক্তিদের শাস্তি প্রদান, ১২ রবিউল আউয়াল সারাদেশে সরকারি ও ব্যাপকভাবে পালন, রাষ্ট্রীয়ভাবে বছরব্যাপী ইসলামী ও সামাজিক অনুষ্ঠানসূচি ঘোষণা, পাঠ্যপুস্তকে মহানবীর (স.) জীবনী বাধ্যতামূলক করা, সবধরনের অশ্লীল ও অশালীন কাজসহ মোবাইল ও ইন্টারনেটে পর্নোগ্রাফি, ভারতীয় টিভি সিরিয়াল ও সুন্দরী প্রতিযোগিতা বন্ধ, শীতকালে কারোনার দ্বিতীয় ওয়েভের নামে আবারও লকডাউনের মতো ‘আত্মঘাতী পদক্ষেপের’ ষড়যন্ত্র রুখতে সম্মিলিতভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ, দেশি সিনেমার জন্য হাজার কোটি টাকা অনুদান বন্ধ করা প্রভৃতি।

জাগো প্রহরী/গালিব

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ