বিনা প্রয়োজনে প্রবেশ নিষেধ কলেজ ক্যাম্পাসে, ৮ নির্দেশনা জারি


জাগো প্রহরী : দেশের সবগুলো সরকারি ও বেসরকারি কলেজগুলোর ক্যাম্পাসে এখন আর বিনা প্রয়োজনে সাধারণ মানুষ ঢুকতে পারবে না। সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে ধর্ষণের ঘটনার পর দেশের সরকারি-বেসরকারি কলেজগুলোর ক্যাম্পাসে বিনা প্রয়োজনে সাধারণ মানুষের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে সিলেটের এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে স্বামীর সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হন স্থানীয় এক নববধূ। ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মীর এই ধর্ষণকাণ্ড নিয়ে সারাদেশে নিন্দা-সমালোচনার ঝড় বইছে। এরই প্রেক্ষাপটে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) এমন নির্দেশনা এলো।

মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে কলেজগুলোর ছাত্রাবাস বন্ধ রেখে সেগুলোতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দেশের সব কলেজের অধ্যক্ষদের চিঠি পাঠিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গত মার্চ থেকে এখন পর্যন্ত দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার বিষয়টি তুল ধরে মাউশির চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘প্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন বন্ধ থাফাযর ফলে কলেজ ক্যাম্পাসগুলোতে নিরাপত্তা বজায় রাখাসহ কলেজের সকল সরকারি সম্পদ ও সরঞ্জামের সুরক্ষা নিশ্চিত করার ব্যাপারে প্রতিষ্ঠান প্রধানগণকে সচেষ্ট থাকতে হবে।’

কলেজ অধ্যক্ষদের নয় দফা নির্দেশনা দিয়ে জরুরিভিত্তিতে তা বাস্তবায়নের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ জানিয়েছে মাউশি। সেই চিঠির একটি নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ‘কলেজ ক্যাম্পাসে বিনা প্রয়োজনে জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করতে হবে।’

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) জারি করা অন্য আট নির্দেশনাগুলো হলো—

১. ছাত্রাবাসসমূহ বন্ধ রাখতে হবে এবং ছাত্রাবাসের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।
২. স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় ক্যাম্পাসে পুলিশ টহল জোরদার করতে হবে।
৩. প্রতিষ্ঠানের মূল ফটকসহ সকল প্রবেশপথে সার্বক্ষণিক প্রহরী নিয়োজিত রাখতে হবে।
৪. প্রতিষ্ঠানে ভিজিল্যান্স টিম গঠন করতে হবে এবং প্রতিষ্ঠান প্রধানের কাছে নিয়মিত পরিদর্শন প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে।
৫. অনলাইন ক্লাস কার্যক্রম চালু রাখতে হবে এবং আঞ্চলিক পরিচালককে তথ্য দিতে হবে।
৬. শিক্ষার্থীদের অনলাইনে ক্লাসে অংশগ্রহণ মনিটরিং এবং অভিভাবকের সঙ্গে সংযোগ সাধন করতে হবে।
৭. শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা প্রদান করতে হবে।
৮. কলেজের বিজ্ঞানাগার ল্যাব, আইসিটি ল্যাব, লাইব্রেরিসহ সার্বিক সরকারি সম্পত্তি ও নথি রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

জাগো প্রহরী/এফআর

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য