কওমি মাদরাসা খোলার বিষয়ে সংশোধিত প্রজ্ঞাপন জারি



জাগো প্রহরী : কওমি মাদরাসা খোলার বিষয়ে সরকারের জারি করা গতকালকের প্রজ্ঞাপনে ভুল থাকায় আজ সংশোধিত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার।

আজ মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) সন্ধ্যায় জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, কওমি মাদ্রাসাসমূহের কিতাব বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু ও পরীক্ষা গ্রহণের অনুমতি প্রদান প্রসঙ্গে।

উপযুক্ত বিষয়ে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ নিশ্চিত করে নিম্নবর্ণিত শর্তে (প্রয়ােজনে স্বাস্থ্য বিভাগের মনিটরিং এর মাধ্যমে) কওমি মাদ্রাসাসমূহের কিতাব বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু ও পরীক্ষা গ্রহণের অনুমতি নির্দেশক্রমে প্রদান করা হলােঃ

ক. প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মাস্ক, হ্যান্ডস্লাভস ও মাথায় নিরাপত্তা টুপি পরিধান করা আবশ্যক। হয়, মাদ্রাসায় প্রবেশের পূর্বে মূল প্রবেশদ্বারে স্যানিটাইজিং করতে হবে। গ. শিক্ষার্থীরা তার নিজ নিজ কক্ষে অবস্থান করবে। বিক্ষিপ্তভাবে এদিক সেদিক চলাফেরা করবে না। ঘ. একজন শিক্ষার্থী থেকে অপর শিক্ষার্থী কমপক্ষে তিন ফুট দূরত্বে অবস্থান করবে। ঙ. কোভিড-১৯ এর কারণে কোলাকুলি ও মুসাফাহা করবে না। চ, শিক্ষক ও কর্মচারীগণও একইভাবে সরকারি স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে ক্লাস গ্রহণ করবেন।

এর আগে গতকাল সোমবার করোনার কারণে আটকে থাকা কওমি মাদরাসার ডিগ্রি ও মাস্টার্স পর্যায়ের পরীক্ষাগুলো নেয়ার অনুমতি দিয়েছিলো সরকার। মাদরাসাগুলোর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা নেয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এ তথ্য জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, একটা সিদ্ধান্ত হয়েছে, সেটা হলো কওমি মাদরাসা আপিল করেছিল তারা উপরের লেভেলের পরীক্ষাগুলো নিয়ে নিতে চায়। সেটা গভর্নমেন্ট এগ্রি (সম্মতি) করেছে। অর্ডার জারি হয়ে যাবে। ওদের পরীক্ষাগুলো হবে ডিগ্রি ও মাস্টার্স লেভেলের। তবে জেনারেল কওমি মাদরাসা খুলবে না। ওই (কিতাব বিভাগ খোলা) বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি।

তবে গতকাল সরকারের পক্ষ থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে লেখা ছিলো, শুধুমাত্র জাতীয় দ্বীনী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড বাংলাদেশের এর কওমি মাদরাসাসমূহের কিতাব বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম চালু ও শুরু করার বিষয়ে অনুমতি দেয়া হলো। অথচ বাংলাদেশে কওমি মাদরাসার শিক্ষাবোর্ড আরো পাঁচটি রয়েছে। সেগুলোর বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি প্রজ্ঞাপনে। তাই অস্পষ্টতা তৈরি হয়েযছে। বেফাকসহ অন্যবোর্ডগুলোর বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনাসহ নতুন প্রজ্ঞাপনের জন্য আবেদন করা হয়েছে। সেটি আসলেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানা যায়।



জাগো প্রহরী/এফআর

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য