ভারতের সঙ্গে আমাদের রক্তের সম্পর্ক, চীনের সঙ্গে অর্থনৈতিক: পররাষ্ট্রমন্ত্রী


জাগো প্রহরী : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন বলেছেন, চীন বাংলাদেশকে করোনানার ভ্যাকসিন দেবে এবং তারা প্রায় ৮ হাজার বেশি পণ্যের শুল্কমুক্ত সুবিধা বাংলাদেশকে দিয়েছে। এটা নিয়ে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কে কোন বিতর্ক তৈরি হয়নি। এটাকে নিয়ে কেউ কেউ রাজনীতি করার চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে সুমদ্র, সীমান্ত, নিরাপত্তাসহ আমাদের বড় ধরণের সব সমস্যা দূর হয়েছে। ছোট ছোট কিছু সমস্যা ঝুলে আছে, ঠিক হয়ে যাবে। মনে রাখবেন ভারতের সঙ্গে আমাদের রক্তের সম্পর্ক। আর চীনের সঙ্গে আমাদের অর্থনৈতিক সম্পর্ক। ভারত-চীনের গন্ডগোল নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন নয়। আগামী বছর আমরা ভারতকে নিয়ে ৫০ বছর পূর্তি উৎসব করবো। কেননা আমাদের বিজয় মানে ভারতের বিজয়। আবার ভারতের বিজয় মানে আমাদের বিজয়।

শনিবার (৮ আগস্ট) মেহেরপুরের ঐতিহাসিক মুজিবনগর পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী আরও বলেন, করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আরিষ্কারে ভারত এবং পাকিস্তান দুটি দেশই অন্যদেশের সঙ্গে যৌথভাবে গবেষণামূলক কাজ শুরু করেছে। সেখানে আমরা কারো সঙ্গে কাজ শুরু করতে পারলাম না, এটা দু:খজনক। আমরা ভ্যাকসিন পেতে ইউরোপিয়ানে অনেক টাকা দিয়ে রেখেছি। 

এ সময় মুজিববর্ষে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর পাঁচ খুনি এখনও যারা জীবিত আছে, তার মধ্যে দুইজনের সন্ধান মিলেছে। একজন আমেরিকা এবং একজন কানাডা আছে। আমরা মুজিববর্ষে এই দুই খুনির একজনকে দেশে আনার জোর প্রক্রিয়া চালাচ্ছি। যাদের আনতে পারছি না সেক্ষেত্রে দূতাবাসগুলোকে বলেছি- অন্ততঃ মাসে একবার লোকজন নিয়ে ওই সমস্ত খুনির বাসার সামনে গিয়ে অবস্থান করতে। যেন জনগণের কাছে ধিকৃত হয়।

এর আগে শুক্রবার রাত ৯ টায় মন্ত্রী মেহেরপুর সার্কিট হাউস পৌঁছালে জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মনসুর আলম খাঁন তাকে ফুল দিয়ে বরণ করেন। পরে শনিবার সকাল সাড়ে ৯ টায় মন্ত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর স্মৃতিসৌধ কমপ্লেক্স এলাকা পরিদর্শনে যান। সেখানে প্রথমেই তিনি মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।পরে মন্ত্রী মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্স এলাকা ঘুরে দেখে ঢাকার উদ্দেশ্যে মেহেরপুর ত্যাগ করেন।

জাগো প্রহরী/এফআর

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ