বঙ্গবন্ধুকে ইসলাম বিদ্বেষী হিসেবে চিহ্নিত করার চেষ্টা করেছিল ঘাতকরা : ধর্ম সচিব


জাগো প্রহরী : ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব মো.নূরুল ইসলাম বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর সকল কর্মকান্ডে ধর্মীয় চিন্তাচেতনায় কোন ঘাটতি না থাকলেও ঘাতকরা তাঁকে ইসলাম বিদ্বেষী হিসেবে চিহ্নিত করার অপচেষ্টা করেছিল। বঙ্গবন্ধু প্রথমেই আইন করে মদ জুয়া নিষিদ্ধ করেছিলেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা এবং বেতার টিভিতে কোরআন তেলাওয়াত শুরু করেন। ওআইসি সম্মেলনে যোগদান করে মুসলিম বিশ্বে বাংলাদেশকে তুলে ধরেন। ধর্ম সচিব বলেন, ঘাতকরা কোরআন বিরোধী কুখ্যাত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে তার ও তার পরিবারের হত্যাযজ্ঞের বিচার কার্যক্রম বন্ধ করেছিল। 

স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শনিবার (১৫ আগস্ট) বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে অনুষ্ঠিত শোকসভায় ধর্ম সচিব নূরুল ইসলাম প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যবৃন্দসহ ১৫ আগস্টের সকল শহীদের রূহের মাগফিরাত কামনা করে শনিবার বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ১০০ জন কোরআনে হাফেজের মাধ্যমে ১০০ বার পবিত্র কোরআন খতম করা হয়। এরপর বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। বনানী কবরস্থানেও কোরআনখানী ও দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। 

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) আনিস মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য প্রদান করেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মু. আ. হামিদ জমাদ্দার, অতিরিক্ত সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নূরী, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সচিব কাজী নূরুল ইসলাম, পরিচালক মোহাম্মদ মহীউদ্দিন মজুমদার ও সহকারী পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম।

মোনাজাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুসহ তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যবৃন্দ ১৫ আগস্টের সকল শহীদের রূহের মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করেন বায়তুল মোকাররমের সিনিয়র পেশ ইমাম মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান। এছাড়া মোনাজাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা এবং দেশের শান্তি, সমৃদ্ধি ও উন্নতির জন্য দোয়া করা হয়।

জাগো প্রহরী/এফআর

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ