আজ-কালে নতুন প্রজ্ঞাপন এলেই মাদরাসা খোলা ও পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবে বেফাক


জাগো প্রহরী : কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের আওতাধীন মাদরাসাগুলো খোলা ও পরীক্ষার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি বোর্ডটি। গতকাল সরকারের পক্ষ থেকে কওমি মাদরাসার খোলার বিষয়ে জারি করা প্রজ্ঞাপন ও মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের বক্তব্যে অমিল থাকায় ধুম্রজাল তৈরি হওয়ায় বোর্ডটি মাদরাসা খোলার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। তাছাড়া প্রজ্ঞাপনে কওমি মাদরাসার ছয় বোর্ডের মাত্র একটি বোর্ডের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। অন্য বোর্ডের অধীনে থাকা মাদরাসাগুলোর বিষয়ে কোনো নির্দেশনা প্রজ্ঞাপন থেকে পাওয়া যায় না। প্রজ্ঞাপনে  অস্পষ্ট থাকায় নতুন করে ভাবতে হচ্ছে বিষয়টি নিয়ে।

আজ মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) বেফাকের বৈঠক শেষে এ তথ্য জানা গেছে। তবে সরকারের কাছে প্রজ্ঞাপনের সংশোধন চেয়ে আবেদন করলে আজকেই নতুন প্রজ্ঞাপন দেয়ার কথা বলা হয়েছে। নতুন সংশোধিত প্রজ্ঞাপন আসলেই বেফাক মাদরাসা খোলা ও পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবে বলে জানিয়েছেন বেফাকের মহাপরিচালক মাওলানা যুুবায়ের আহমদ চৌধুরী। তিনি বলেন, মাদরাসা খোলা ও পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়নি বেফাক। নতুন প্রজ্ঞাপন আসলেই আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারবো।

এর আগে গতকাল সোমবার করোনার কারণে আটকে থাকা কওমি মাদরাসার ডিগ্রি ও মাস্টার্স পর্যায়ের পরীক্ষাগুলো নেয়ার অনুমতি দিয়েছিলো সরকার। মাদরাসাগুলোর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা নেয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এ তথ্য জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, একটা সিদ্ধান্ত হয়েছে, সেটা হলো কওমি মাদরাসা আপিল করেছিল তারা উপরের লেভেলের পরীক্ষাগুলো নিয়ে নিতে চায়। সেটা গভর্নমেন্ট এগ্রি (সম্মতি) করেছে। অর্ডার জারি হয়ে যাবে। ওদের পরীক্ষাগুলো হবে ডিগ্রি ও মাস্টার্স লেভেলের। তবে জেনারেল কওমি মাদরাসা খুলবে না। ওই (কিতাব বিভাগ খোলা) বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি।

তিনি বলেন, ‘তবে সরকার কিছু কন্ডিশন দিয়ে দিয়েছে, অবশ্যই এভাবে এভাবে…স্বাস্থ্যবিধি মেনে তারপর করতে হবে।’

এর আগে গত ১৭ আগস্ট কিতাব বিভাগের কার্যক্রম চালু ও পরীক্ষা নেয়ার সুযোগ করে দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আবেদন জানিয়েছিল কওমি মাদরাসাগুলো। ওইদিন সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের কাছে আবেদনপত্রটি পৌঁছে দেন জাতীয় দ্বীনী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধি দল ৷

জাগো প্রহরী/এফআর

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য