জি কে শামীম কীভাবে জামিন পেয়েছেন তা খতিয়ে দেখা হবে : আইনমন্ত্রী


জাগো প্রহরী : ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার হওয়া বিতর্কিত ঠিকাদার জি কে শামীম অস্ত্র ও মাদকের মামলায় কিভাবে জামিন পেয়েছিলেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে, জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

নাম বিভ্রাটের কারনে জিকে শামীমকে ২ মামলায় জামিন দেওয়ার পর সেই জামিন আবার বাতিল করে হাইকোর্ট। এদিকে, এক সপ্তাহের মধ্যে মানি লন্ডারিং মামলায় জিকে শামীমের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেবে সিআইডি।

গেল বছরের সেপ্টেম্বরে রাজধানীতে ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানে নিকেতনে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে আটক করা হয় ঠিকাদার জিকে শামীম ও তার ৭ অস্ত্রধারী দেহরক্ষীকে। অভিযানে উদ্ধার হয় বিপুল পরিমান নগদ টাকা, এফডিআর, আগ্নেয়াস্ত্র ও মাদক । দায়ের হয় একাধিক মামলা।

গত ৪ ও ৬ ফেব্রুয়ারি দুই হাইকোর্ট বেঞ্চ জিকে শামীমকে অস্ত্র মামলায় ৬ মাস এবং মাদক মামলায় ১ বছরের জামিন দেয়। তবে নাম বিভ্রাটের কারণে জামিন হওয়ায় সেই জামিন দ্রুত বাতিল করে হাইকোর্ট। জামিন আবেদনে নাম গোলাম কিবরিয়া লেখা হলেও আদালতের কার্যতালিকায় নাম লেখা ছিল এস এম গোলাম।

আলোচিত দুর্নীতি মামলার জামিন শুনানিতে এতো বড় বিভ্রাট কিভাবে হয় তা নিয়ে তদন্ত করছে সরকার । এ নিয়ে রাষ্ট্রপক্ষের দায়িত্বে থাকা ডেপুটি এ্যটর্নি জেনারেল জান্নাতুল ফেরদৌস রুপাকে প্রশ্ন করা হয়, এত বড় বিভ্রাট কিভাবে হল। তবে কোন প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেন তিনি।

বিষয়টি নিয়ে এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বললেন, জামির শুনানীতে কারও ইচ্ছেকৃত ত্রুটি ছিল কি না তা দেখা হচ্ছে। জামিন দেয়া নিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনজীবী খুরশীদ আলম জানান, এ ধরনের স্পর্শকাতর আসামীর ক্ষেত্রে এ্যাটর্নি জেনারেল অফিসসহ সংশ্লিষ্ট প্রসিকিউশন বিভাগের আরো সতর্ক থাকা উচিত।

জিকে শামীমের জামিন ইস্যুতে সংশ্লিষ্ট কারো কোনো ইচ্ছাকৃত গাফিলতি ছিল কি না তা খতিয়ে দেখছে আইন মন্ত্রনালয়, জানালেন আইন মন্ত্রী আনিসুল হক।

জিকে শামীমের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত একাধিক মামলা দায়ের হয়েছে। এর মধ্যে মানি লন্ডারিং মামলায় আগামী সপ্তাহে আদালতে অভিযোগপত্র দেবে সিআইডি।

জাগো প্রহরী/এফআর

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য