এবার শুরু হচ্ছে আফগান সরকার ও তালেবানের শান্তিচুক্তি প্রক্রিয়া


জাগো প্রহরী : আফগানিস্তানে তালেবানের সাথে যুদ্ধ করা আমেরিকা নেতৃত্বাধীন ন্যাটোবাহিনীর পরাজয় পরবর্তি শান্তিচুক্তির পর এবার তালেবানের সাথে শান্তিচুক্তির দিকে যাচ্ছে আশরাফ ঘানী নেতৃত্বাধীন আফগান সরকার। তালেবানও এবারের শান্তি চুক্তির আহ্বানে সাড়া দিয়েছে বলে জানিয়েছে আফগান গণমাধ্যম।

আফগানিস্তানের সরকার ও তালেবান গেরিলারা প্রথমবারের মতো উচ্চ পর্যায়ের শান্তি বৈঠকে বসতে যাচ্ছে। কাতারের রাজধানী দোহায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। তবে এ বিষয়ে দুই পক্ষ থেকে এখনো সুনির্দিষ্ট কোনো তারিখ ঘোষণা করা হয় নি।

গত রোববার আফগান সরকার এবং তালেবান গেরিলারা শান্তি বৈঠকের ঘোষণা দিয়েছে। এর আগে কাতারের রাজধানী দোহায় মার্কিন সরকারের সঙ্গে তালেবানের দীর্ঘ আলোচনার পর চলতি বছরের প্রথম দিকে একটি শান্তি চুক্তিসই হয়।

এরপরই আলোচনায় আসছে আফগান সরকারের সাথে তালেবানের শান্তিচুক্তির বিষয়টি। তবে তালেবানের পক্ষ থেকে আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, এই প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার আগে অবশ্যই মার্কিন-তালেবান চুক্তি অনুসারে আফগান সরকার কর্তৃক আটক হওয়া সকল তালেবান বন্দীদের মুক্তি দিতে হবে।

অপরদিকে আফগান সরকার এ পর্যন্ত ৩,০০০ তালেবান বন্দিকে মুক্তি দিয়েছে এবং আফগান সরকার এবং তালেবানদের একটি দলের মধ্যে সরাসরি এই আলোচনার পথ উন্মুক্ত করতে ৫,০০০ বন্দিকে মুক্তি দেওয়া সম্পন্ন করার অঙ্গীকার করেছে ৷

তবে সম্প্রতি তালেবানের পক্ষ থেকে শান্তিচুক্তির বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হওয়ার পর বলা হয়েছে – প্রাথমিকভাবে আলোচনাটি কাতারে অনুষ্ঠিত হবে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। আফগানিস্তানের শান্তি বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের একজন মুখপাত্র নাজিয়া আনোয়ারী বলেছেন, ‘সরকারের আলোচনার দলটি আলোচনায় অংশ নিতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত”।

এদিকে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ হানিফ আতমার, মার্কিন বিশেষ দূত জালময় খলিলজাদ এবং রাশিয়ার বিশেষ দূত জামির কাবুলভ গতকাল সন্ধ্যায় এ বিষয়ে ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দিয়েছেন।

তালেবান বন্দীদের মুক্তি, আন্তঃ-আফগান আলোচনার শুরু এবং আফগান শান্তির বিষয়ে একটি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সিদ্ধান্ত ও সমাধানের পথ উম্মুক্ত করাটাই  আলোচনার মূল এজেন্ডা হবে বলেছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গ্রান হেওয়াদ।

জাগো প্রহরী/এফআর

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য