আমরা আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব : ভিপি নুর


জাগো প্রহরী : সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক লাইভে এসে তরুণদের নিয়ে নতুন রাজনৈতিক দল করার ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর। তিনি বলেছেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরেই এই দল গঠনের চিন্তা-ভাবনা করছি। এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যেই যুব, শ্রমিক ও প্রবাসী অধিকার পরিষদ গঠন করেছি। কিন্তু কী হবে এই রাজনৈতিক দলের নাম; কবে নাগাদ আত্মপ্রকাশ কিংবা এটি গঠনের মূল উদ্দেশ্য কী— দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসের ঢাবি প্রতিনিধি ছিদ্দিক ফারুকের সঙ্গে আলাপকালে এমন নানা প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন এই ছাত্রনেতা। সাক্ষাৎকারটি জাগো প্রহরীর পাঠকদের জন্য পেশ করা হলো-

টিডিসি: কবে নাগাদ আপনার দল আত্মপ্রকাশ করবে?

নুরুল হক নুর: আমরা অনেকদিন ধরেই কাজ করছি। যদিও কবে কবে নাগাদ দলের নাম ঘোষণা দিব- এখনো সে বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা করিনি। তবে এটি নিয়ে বারবার আলোচনা করছি এবং কাজও করে যাচ্ছি। অভ্যন্তরীণ কাজগুলো শেষ করে অতিদ্রুত ঘোষণা দেওয়ার চেষ্টা করব। নির্দিষ্ট কোনো দিনক্ষণ বলব না; তবে মানুষ এটিকে চমক হিসেবে দেখতে পাবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, সাংবাদিক ও সিভিল সোসাইটিতে যাদের গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে; আমরা তাদেরকে সংশ্লিষ্ট করে নতুন দল গঠনের জন্য কাজ করছি।

টিডিসি: নতুন রাজনৈতিক দলের নাম কী?

নুরুল হক নুর: আমাদের কাছে একাধিক নামের প্রস্তাব এসেছে। তবে এখনেও পর্যন্ত কোন চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারিনি। আমি আপনার মাধ্যমে পাঠকের কাছে একটি তথ্য জানাতে চাই; তা হলো আমাদের নতুন যে রাজনৈতিক দল গঠিত হবে সেখানে ‘অধিকার’ শব্দটি উল্লেখ থাকবে। ইতোমধ্যে আমরা ছাত্র অধিকার, যুব অধিকার, প্রবাসী অধিকার পরিষদ গঠন করেছি। তারই ধারাবাহিকতায় ‘অধিকার’ শব্দটি উল্লেখ থাকবে।

টিডিসি: আগামী জাতীয় নির্বাচনকে টার্গেট ধরে কাজ করছেন কিনা? 

নুরুল হক নুর: অবশ্যই। আমরা আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে এগোতে চাই। সে লক্ষ্যেই আমরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। পরিবেশ পরিস্থিতির আলোকে আমরা আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব।

টিডিসি: এখনও পর্যন্ত শুধু ক্যাম্পাসেই ছাত্র অধিকার পরিষদের চূড়ান্ত কমিটি দিতে পারেননি। সে হিসেবে নতুন দল গঠন তো বড় চ্যালেঞ্জ। পুরো বিষয়টি কীভাবে ওভারকাম করবেন?

নুরুল হক নুর: আমরা ছাত্র অধিকার পরিষদের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেইনি তা ঠিক; কিন্তু আমাদের কমিটি দেয়ার মত যথেষ্ট লোক আছে। আমরা যাচাই-বাছাই করে কমিটিতে লোক আনার চেষ্টা করছি। আমরা সকল পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়, বড় বড় কলেজ এবং জেলা-উপজেলা পর্যায়ে কমিটি দেয়ার জন্য লোক যাচাই-বাছাই করছি এবং অতিসত্বর কমিটি ঘোষণা করব। আমাদের এ কাজ চলমান। আমরা চাচ্ছি কোন সাম্প্রদায়িক শক্তি, উগ্র এবং নিষিদ্ধ কোন সংগঠনের লোক যেন আমাদের কমিটিতে আসতে না পারে; আমরা সে লক্ষ্যেই কাজ করছি।

টিডিসি: কোটা সংস্কার তথা ছাত্র অধিকার পরিষদের বাইরে কাউকে নেতৃত্বে আনার চিন্তা-ভাবনা আছে কিনা?

নুরুল হক নুরু: কেউ যদি আমাদের লক্ষ্য উদ্দেশ্য এবং অধিকার আদায়ের সংগ্রামে ঐক্যবদ্ধ হতে চায়; তাহলে আমরা তাদেরকে গ্রহণ করব। তারা যদি নেতৃত্বের যোগ্য হয়; তাহলে অবশ্যই নেতৃত্বে আসবে। তবে আপাতত বাইরে কাউকে নেতৃত্বে আনার চিন্তা নাই।

টিডিসি: কোন পদ্ধতিতে এগোচ্ছেন, আপনাদের শক্তি কী?

নুরুল হক নুর: আজ আমার দেশ দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হচ্ছে। অর্ধশিক্ষিত ও মূর্খলোকেরা দেশ শাসন করছে। তারা আইনকে প্রভাবিত করছে। নির্দিষ্ট কোন সুবিচার ও সুশাসন নেই। শুধু তাই নয়, এখনও একদলীয় শাসনব্যবস্থা চলছে। এ থেকে মুক্তি চাই। এটা শুধু বর্তমান সরকার নয়, এর আগেও যারা ক্ষমতায় ছিলেন; একই কাজ তারাও করেছেন। আজ স্বাধীনতার ৫০ বছরের মাথায় কোন সরকার স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে সরকার পরিচালনা করতে পারেনি। তাই আমরা সম্পূর্ণ গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে মানুষকে নিয়ে, মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে কাজ করার জন্য নতুন পদ্ধতিতে দল পরিচালনা করব।

টিডিসি: দেশে প্রতিষ্ঠিত একাধিক দল বা জোট থাকতে জনগণ কেন আপনাদের দলের প্রতি আকৃষ্ট হবে?

নুরুল হক নুর: আমরা সাধারণ মানুষ তাদের মৌলিক অধিকার, মানবাধিকার ও ভোটাধিকারসহ সকল অধিকারকে সামনে রাখব। সেই সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার চেতনা, সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচারকে প্রাধান্য দিব; যা অন্যান্য রাজনৈতিক দল করতে ব্যর্থ হয়েছে। এ ধারাগুলো বিবেচনা করলে আমরা বলতে পারি; মানুষ আমাদেরকে ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করবে। সেক্ষেত্রে গতানুগতিক রাজনৈতিক দলগুলো একটি পরিবারকেন্দ্রিক রাজনীতি করছে। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বও এখন বঙ্গবন্ধু পরিবারের মধ্যে সীমাবদ্ধ। অন্যদিকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) জিয়া পরিবারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ; ভবিষ্যতেও তাই হবে। তাই বলি একটি দলের মধ্যে যদি গণতান্ত্রিক চর্চা না থাকে; তারা কিভাবে দেশের মানুষকে গণতন্ত্র উপহার দেবে? আমরা এই সিস্টেমের পরিবর্তন চাই। এসব কারণেই আমরা নতুন রাজনৈতিক দল গঠন করছি।

টিডিসি: কোন জোটের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন বা কাজ করার কোন পরিকল্পনা আছে কিনা?

নুরুল হক নুর: আপাতত কোন জোটে যাওয়ার পরিকল্পনা নাই। তবে পরিবেশ ও পরিস্থিতির আলোকে নতুন  সিদ্ধান্তে পোঁছাব।

টিডিসি: আপনাকে ধন্যবাদ।
নুরুল হক নুর: আপনাদেরকেও ধন্যবাদ

সূত্র : দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস

জাগো প্রহরী/এফআর

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য