ভর্তি শুরুর অনুমোদন: গত বছরের পরীক্ষা ও মাদরাসা খোলা নিয়ে হয়নি সিদ্ধান্ত


জাগো প্রহরী : মহামারি করোনা পরিস্থিতিতে প্রায় তিন মাস যাবত বন্ধ আছে শিক্ষা কার্যক্রম। দেশে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়লে তাৎক্ষণিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হলে অপূর্ণাঙ্গ অবস্থায় সমাপ্ত হয়েছে কওমি মাদরাসার গতবছরের শিক্ষাবর্ষ। এদিকে রমযান পরবর্তী সময়ে শুরু হয়েছে নতুন শিক্ষাবর্ষ। কিন্তু অন্য অনেক প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হলেও শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করার সরকারি কোনো ঘোষণা এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

তবে সরকারের সাথে কয়েক দফায় যোগাযোগ করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নতুন শিক্ষাবর্ষের জন্য ভর্তি কার্যক্রম চালানোর সিদ্ধান্ত জানিয়েছে বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ। অবশ্য ভর্তি কার্যক্রম চালানো গেলেও কোনো ছাত্রের মাদরাসায় অবস্থান সম্পূর্ণ নিষেধ করে দেওয়া হয়েছে।

আজ সোমবার ( ১ জুন ) বেফাক এক বিবৃতিতে জানিয়েছে এ খবর। এর আগে গতকাল কওমি মাদরাসা সম্মিলিত শিক্ষাবোর্ড হাইআতুল উলয়ার বৈঠক থেকেও নতুন বছরের ভর্তি কার্যক্রম শুরু করার সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে।

হাইআতুল উলয়ার বৈঠক এবং বেফাকের বিবৃতি বিষয়ে গণমাধ্যমকে তথ্য নিশ্চিত করেছেন বোর্ড দু’টির কেন্দ্রীয় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বশীল এবং রাজধানীর আরজাবাদ মাদরাসার মোহতামিম মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া।

তবে কবে নাগাদ মাদরাসার শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হতে পারে এ ব্যাপারে নির্দিষ্ট কিছু সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন বেফাকের সহ সভাপতি এবং হাইআর সদস্য মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া।

তিনি বলেন, বোর্ডের দায়িত্বশীলদের পক্ষ থেকে কয়েক দফায় সরকারের স্বরাষ্ট্র এবং ধর্ম মন্ত্রণালয় এবং সংশ্লিষ্ট সচিবালয়ে যোগাযোগ করা হয়েছে। অতপর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভর্তি কার্যক্রম চালানোর কথা জানানো হয়েছে। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রদের অবস্থান করতে নিষেধ করে দেওয়া হয়েছে।

মাদরাসায় শিক্ষা কার্যক্রম কবে শুরু হতে পারে? জানতে চাইলে মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া বলেন, আমাদেরকে পরিস্থিতি বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। বোর্ডের পক্ষ থেকে সরকারের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত আছে। পরিস্থিতির উন্নতি হলে শীঘ্রই মাদরাসা খুলে দেওয়ার ব্যাপারে আমরা সিদ্ধান্ত জানাতে পারব।

গতবছরের বেফাকের কেন্দ্রীয় পরীক্ষা এবং হাইআতুল উলয়ার অধীনে দাওরায়ে হাদিসের পরীক্ষার বিষয়েও বিগত বৈঠকগুলোতে কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়নি বলে জানিয়েছেন মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া।

জাগো প্রহরী/ফাইয়াজ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য