জনসভায় করোনা আক্রান্ত হলে দায় নেবেন না ট্রাম্প


জাগো প্রহরী : যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির মধ্যেই নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে জনসভার আয়োজন করতে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

কিন্তু আবার বলছেন, এই জনসভা থেকে কেউ করোনায় আক্রান্ত হলে তার দায় নেবেন না তিনি। এজন্য কেউ যাতে পরে অভিযোগ জানাতে না পারে সেজন্য অংশগ্রহণকারীদের থেকে আগেভাগে দায়মুক্তিপত্রে স্বাক্ষর নিচ্ছে ট্রাম্পের প্রচারণা শিবির।

সমাবেশে অংশগ্রহণে ইচ্ছুকদের উদ্দেশে বলা হয়েছে, ‘এখানে রেজিস্ট্রার করার সঙ্গে আপনি স্বীকার করছেন, সমাবেশ থেকে কেউ করোনায় সংক্রমিত হলে ট্রাম্প বা তার কোনো অনুমোদিত পরিচালক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, এজেন্ট, ঠিকাদার, বা কোনো স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা এর জন্য দায়বদ্ধ থাকবে না।’ ট্রাম্পের পার্সোনাল ওয়েবসাইটে শুক্রবার এই বার্তা দেয়া হয়েছে।

আমেরিকায় করোনাভাইরাসে সংক্রমণ ২১ লাখ ছাড়িয়েছে। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুও। বিশেষজ্ঞদের অনেকেই মনে করছেন, সেপ্টেম্বরেই মৃত্যু ২ লাখ ছাড়িয়ে যেতে পারে। এসব নিয়ে অবশ্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কোনো মাথাব্যথা নেই। তিনি তার নির্বাচনী সভার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এর আগে তিনি বলেছিলেন, ‘আমেরিকায় মৃত্যু এক লাখের আশপাশে থেমে যাবে।’ তবে তা যে মিলবে না, তা এখনই বলে দিচ্ছে উচ্চ মহল। আপাতত মৃত্যু ১ লাখ ১৬ হাজার ছাড়িয়েছে।

সমালোচনার মুখে জনসভা এক দিন পিছিয়ে দিলেন ট্রাম্প

সমাবেশের তারিখ নিয়ে সমালোচনার মুখে এর তারিখ এক দিন পিছিয়ে দিলেন ট্রাম্প। ওকলাহোমার টুলসায় ১৯ জুন ওই জনসভা হওয়ার কথা ছিল। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে নৃশংসতম বর্ণবাদী হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছিল ওকলাহোমার টুলসায়।

এর বার্ষিকীতেই শহরটিতে নির্বাচনী সভা করতে চাওয়ায় প্রচণ্ড সমালোচনা শুরু হয়। ট্রাম্প শিবিরের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, কৃষ্ণাঙ্গ নেতাদের অনুরোধের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের জন্যই ট্রাম্প তার সমাবেশের দিন এক দিন পেছানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এটি অনুষ্ঠিত হবে ২০ জুন। দাসত্ব থেকে মুক্তির দিনকে স্মরণ করতে আফ্রো-আমেরিকানরা প্রতি বছর ১৯ জুনকে ‘জুনটিন্থ’ হিসেবে পালন করে থাকেন।
১৮৬৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রে গৃহযুদ্ধ অবসানেরও কয়েক মাস পর এই দিনে সম্মিলিত সামরিক জোটের প্রধান জেনারেল গর্ডন গ্রেঞ্জার টেক্সাসে এসে যুক্তরাষ্ট্রে গৃহযুদ্ধ সমাপ্ত ও দাসপ্রথা বিলুপ্তির ঘোষণা দেন। অবশ্য এরও দুই বছর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন দাসপ্রথা বিলুপ্তির আদেশ সই করেছিলেন।

জাগো প্রহরী/গালিব

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য