ভারতের ৩,৭৭০ বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া অষ্টম


জাগো প্রহরী : ভারতের দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় আলোচনার তুঙ্গে ওঠে আসে গত বছর সিএএ-এনআরসি আন্দোলনকে কেন্দ্র করে। তখন ছাত্র-ছাত্রীদের মারধরের ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধে পুরো ভারতে পড়ুয়াদের মধ্যে ক্ষোভের আগুন জ্বলে ওঠে।

সে সময় সিএএ-এনআরসি বিরোধী আন্দোলনকে দমন করতে বিশ্ববিদ্যালয়ে চড়াও হয়েছিল দিল্লি পুলিশ। গোষ্ঠী সংঘর্ষের ষড়যন্ত্রে যুক্ত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে জামিয়ার শত শত শিক্ষার্থীকে।

সেই জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় আবারও আলোচনায়। এবার ভিন্ন কারণে। আর তা হচ্ছে ভারতের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো মধ্যে অষ্টম স্থানে ওঠে এসেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়। যা নিয়ে হৈ চৈ পড়ে গেলো ভারত জুড়ে।

ভারতের উজ্জ্বল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সরকারি ক্রমতালিকায় প্রথম সারিতে জায়গা করে নিল এই বিশ্ববিদ্যালয়টি। ২০১৬ সালে চালু হওয়া ক্রম তালিকায় এই প্রথম বার প্রথম দশে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া স্থান পেয়েছে।

ভারতের ৩,৭৭০টি প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন বিভাগে জমা দেওয়া ৫,৮০৫টি আবেদনের ভিত্তিতে সার্বিক ভাবে প্রথম স্থান ধরে রেখেছে আইআইটি-মাদ্রাজ। ম্যানেজমেন্টে প্রথম তিনে তিন ‘পুরনো’ আইআইএম— আমদাবাদ, বেঙ্গালুরু ও কলকাতা। ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে প্রথম তিনে আইআইটি মাদ্রাজ, দিল্লি ও বম্বে। মেডিক্যালে প্রথম তিন এমস, চণ্ডীগড়ের পিজিআইএমইআর এবং ভেল্লোরের খ্রিস্টান মেডিক্যাল কলেজ। কলেজে দিল্লির জয়-জয়কার। প্রথম চারে মিরান্ডা হাউস, লেডি শ্রীরাম কলেজ ফর উইমেন, হিন্দু কলেজ এবং সেন্ট স্টিফেন্স। আইনে শীর্ষে কর্নাটকের ন্যাশনাল ল স্কুল। স্থাপত্যবিদ্যায় প্রথম দু’য়ে দুই আইআইটি— খড়্গপুর ও রুরকি। এ বারই প্রথম তালিকা বার হওয়া ডেন্টালে প্রথম দিল্লির মৌলানা আজাদ ইনস্টিটিউট অব ডেন্টাল সায়েন্সেস। ফার্মাসির শীর্ষে জামিয়া হামদর্দ।

তবে দিনের শেষে সব থেকে বেশি আলোচনা সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকার উপরের দিকে জামিয়ার ঠাঁই পাওয়া নিয়েই।

জামিয়ার উপাচার্য নাজমা আখতারের কথায়, “এত প্রতিকূলতার মোকাবিলা করে প্রথম দশে উঠে আসা সহজ কথা নয়।” সূত্র: আনন্দবাজার

জাগো প্রহরী/ফাইয়াজ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ