ভারতীয় জেলেরা মাছ ধরে নিচ্ছে, বাংলাদেশীদের ওপর নিষেধাজ্ঞা কেন?


জাগো প্রহরী : এক বঙ্গোপসাগরে দুই নিয়মের আইন বন্ধ করে এক আইন চালু করা দরকার। ভারত ও বাংলাদেশ বঙ্গোপসাগরে এক সাথে মাছ ধরা, ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা বন্ধসহ কয়েক দফা দাবি নিয়ে মানববন্ধন করেছে মৎস্যজীবীসহ স্থানীয় জনসাধারণ। শনিবার ( ২৭ জুন ) সকাল ১১টার দিকে পাথরঘাটা শেখ রাসেল স্কয়ার চত্বরে মানববন্ধনের আয়োজন করেন বরগুনা জেলা মৎস্যজজীবী ট্রলার মালিক সমিতি, বরগুনা জেলা ফিশিং ট্রলার শ্রমিক ইউনিয়ন, পাথরঘাটা আড়তদার সমিতি। পরে পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মো: মাসুম, বিএফডিসি আড়তদার সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর জোমাদ্দার, বরগুনা জেলা ফিশিং ট্রলার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আ: মন্নান হাওলাদার, সাধারণ সম্পাদক মো: দুলাল মিয়া প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশী জলসীমায় প্রতি বছর ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিনের মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয় অথচ একই বঙ্গোপসাগরে ভারতের জেলেরা নির্বিঘ্নে মাছ ধরে নিচ্ছে, তাছাড়া বাংলাদেশী জলসীমায় অনুপ্রবেশ করে ভারতীয়রা মাছ ধরে নেয়। ইলিশের প্রজনন মৌসুমে ২২ দিন আমরা মাছ ধরা থেকে বিরত থাকি। এ সময় ভারতীয় জেলেরা মাছ ধরে নিয়ে যাচ্ছে। এতে ভারতীয় জেলেরা সাবলম্বি হচ্ছে আর বাংলাদেশী জেলেরা অসহায় হয়ে পড়ছে।

বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, আমরা জেলেদের অধিকার নিয়ে বহু আন্দোলন, সংগ্রাম করেছি। কিন্তু কোনো কাজের কাজ হয় না। এবার আমাদের সময় এসেছে আত্মহত্যা করার। আত্মহত্যা করা ছাড়া আমাদের কোনো উপায় নাই, কারণ আমাদের জেলেদের ঘরে চাল নেই, হাতে টাকা নেই। ভিক্ষা করা আর আত্মহত্যা করা ছাড়া পথ খোলা নেই। আমরা দ্রুত সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

 জাগো প্রহরী/গালিব

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য