কাঁচাধান কেটে ও পাকা ধান মাড়িয়ে কৃষকের ক্ষতি করবেন না : অধ্যক্ষ ইউনুছ আহমাদ


জাগো প্রহরী : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেছেন, কাঁচাধান কেটে কৃষকের অপুরণীয় ক্ষতি করে ফটোসেশন করা সরকার দলীয় জনপ্রতিনিধিদের যে কালচার শুরু হয়েছে তা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না, তা বন্ধ করতে হবে। তিনি বলেন, কাঁচা ধান কেটে কৃষকের ক্ষতি করে টাঙ্গাইলে এমপি যে কাজ করেছে তা শিষ্টাচার পরিপন্থি।

আজ শুক্রবার ( ১ মে ) বেলা সাড়ে এগারোটায় পুরানা পল্টনস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এক জরুরি সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাজনৈতিক উপদেষ্টা অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম, মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, কেএম আতিকুর রহমান, মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাকী, আলহাজ্ব মনির হোসেন, মাওলানা নেছার উদ্দিন, এডভোকেট লুৎফুর রহমান, এডভোকেট শওকত আলী হাওলাদার, আলহাজ্ব আবদুর রহমান প্রমুখ ৷

মহাসচিব মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেন, ত্রাণ বিতরণে সরকার দলীয় জনপ্রতিনিধিরা যে সীমাহীন দুর্নীতি করেছে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এই দলীয় জনপ্রতিনিধি ও নেতাকমীদের দিয়ে রেশন কার্ড তালিকা করলে দুর্নীতির সীমা থাকবে না। তিনি বলেন, যাদের হাতে দায়িত্ব পড়েছে তারা ওই তালিকা নিজেরা পদপদবীর ভিত্তিতে ভাগাভাগি করে নিচ্ছে। তিনি বলেন, কোনো কোনো জায়গায় একদিন দু’দিনের মধ্যে তালিকা দেয়ার তাগাদার কারণে মনগড়া তালিকাও প্রদান করা হয়েছে। এতে করে রেশন সামগ্রী আত্মসাতের পথ আরো প্রশস্ত করবে।

মহাসচিব বলেন, দুর্নীতিমুক্তভাবে রেশন কার্ড তালিকা প্রণয়ণে সেনাবাহিনীকে দায়িত্ব দিতে হবে। ভোটার আইডি কার্ড তৈরির মতো করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে রেশন কার্ড তালিকা করার জন্যও সেনাবাহিনীকে দায়িত্ব দিলে দুর্নীতিমুক্ত তালিকা হবে।

জাগো প্রহরী/ফাইয়াজ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য