এক লাখ ৭৬ হাজার সাত হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত : কৃৃৃষিমন্ত্রী


জাগো প্রহরী: কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বললেন, ঘূর্ণিঝড় আম্পানে সারা দেশে এক লাখ ৭৬ হাজার সাত হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে বোরো ধানের মত প্রধান ফসলের খুব বেশি ক্ষতি হয়নি।

বৃহস্পতিবার ( ২১ মে ) ঘূর্ণিঝড় আম্পান পরবর্তী কৃষির ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে অনলাইন প্রেস ব্রিফিংয়ে  এ তথ্য জানান। এসব জমিতে থাকা বিভিন্ন ফসলের ৫-৫০ শতাংশ পর্যন্ত ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশের অধিকাংশ স্থানেই ধান কাটা সম্পন্ন হয়ে গেছে। তাই ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কিছুটা কম হয়েছে। তাছাড়া ঘূর্ণিঝড় আম্পান আসার সংবাদ আমরা গত ১৫ তারিখের মধ্যেই জানতে পারি। ফলে যথাযথ প্রস্তুতি গ্রহণ করায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমানো গেছে।

এদিকে আম্পানের তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে খুলনা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরা জেলার সুন্দরবন উপকূলীয় এলাকা। বিধ্বস্ত হয়েছে হাজার হাজার ঘরবাড়ি, ভেঙ্গেচুড়ে একাকার হয়ে গেছে গাছপালা। ভারী বর্ষণ ও তীব্র জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে অসংখ্য ফসলি জমি ও মাছের ঘের।

সড়কে বড় বড় গাছপালা ও বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়ায় সব ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে গেছে। গতকাল বুধবার সন্ধ্যা থেকে শুরু হয়ে সারারাত চলা তাণ্ডবে বিধ্বস্ত জনপদে পরিণত হয়েছে গোটা সুন্দরবন উপকূল। বিশেষ করে খুলনার কয়রা, দাকোপ, সাতক্ষীরার শ্যামনগর, বাগেরহাটের মোংলা ও শরণখোলা উপজেলাসহ বিস্তীর্ণ জনপদ বিধ্বস্ত হয়ে গেছে।

এসব এলাকায় প্লাবিত হয়ে ভেসে গেছে অসংখ্য কাঁচা, আধাপাকা ঘরবাড়ি, রাস্তা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হওয়ায় অন্তত ১০০ কোটি টাকারও বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জাগোপ্রহরী/গালিব

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ