আরব দেশগুলোর পর এখন কানাডায় ইসলামফোবিয়ার জন্য ভারতীয় বংশোদ্ভূতকে শাস্তি


জাগো প্রহরী : সামাজিক মিডিয়ার পেইজ ব্যবহার করে ইসলামফোবিয়া প্রদর্শন করার জন্য আরব দেশগুলোতে বেশ কয়েকজন ভারতীয় নাগরিক চাকরিচ্যুৎ হওয়ার পর কানাডাও একই ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করে এক ইসলামফোবিকে একটি স্কুল কমিটি থেকে অপসারণ করেছে এবং দেশটির শীর্ষস্থানীয় রিয়েল এস্টেট কোম্পানির চুক্তি থেকে তাকে বরখাস্ত করেছে। রবি হুদা নামের ওই ব্যক্তি ভয়াবহ মাত্রার ইসলাফোবিয়া ক্ষোভ প্রকাশ করায় কানাডার রাজনীতিবিদ ও নাগরিক সমাজের সদস্যরা প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। এর ফলে রবি তার টুইটার অ্যাকাউন্টটি প্রাইভেট করে ফেলেন।

টরন্টো এলাকার বেশ কয়েকটি মিউনিসিপ্যালিটির মসজিদে ইফতারের সময় লাউডস্পিকারে আজান প্রচার করার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে মুসলিমরা।

ব্রাম্পটনও লাউডস্পিকারে মাগরিবের আজান প্রচার করার অনুমতি দেয়। কিন্তু স্থানীয় ইসলাফোবিক রবি হুদা এটাকে ভালোভাবে নেননি। তিনি মুসলিম ও তাদের ধর্ম নিয়ে বিদ্রুপ করতে থাকেন। তিনি লিখেন, এরপর কী হবে? উট আর ছাগলের জন্য আলাদা রাস্তা হবে, কোরবানির নামে বাড়িতে পশু জবাই করার অনুমতি দেয়া হবে, মাথা থেকে পায়ের পাতা পর্যন্ত সব নারীকে ঢেকে রাখতে হবে কেবল ভোটের জন্য বোকাদের তুষ্ট রাখার জন্য।

উদার মূল্যবোধের জন্য বিশ্বজুড়ে প্রশংসিত কানাডাজুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি করে রবির টুইট। ব্রাম্পটনের পিল ডিস্টিক্ট স্কুল বোর্ড তাকে স্কুল কাউন্সিল চেয়ার থেকে সরিয়ে দেয় এবং তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে। স্কুলের টুইটে বলা হয়, প্রিন্সিপাল তদন্ত শুরু করেছেন। ওই লোককে স্কুল কাউন্সিল চেয়ার থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। তিনি কোনোভাবেই কাউন্সিলে অংশ নিতে পারবেন না। আমাদের নিরাপদ ও গ্রহণযোগ্য স্কুল নীতিতে ইসলামফোবিয়া গ্রহণযোগ্য নয়। 

কানাডার শীর্ষস্থানীয় রিয়েল এস্টেট মার্কেটিং ওয়েবসাইট রেম্যাক্স কানাডাও জানিয়েছে, তারা রবির সঙ্গে চুক্তি বাতিল করেছে। তারা টুইটে জানায়, তারা রবির মনোভাব সমর্থন করে না। তারা বলে: আমরা তাকে অপসারণের বিষয়টি নিশ্চিত করছি, তিনি আর এই প্রতিষ্ঠানের কেউ নন।

ব্রাম্পটনের মেয়র প্যাট্রিক ব্রাউনও বলেন, কানাডায় ইসলামফোবিয়া বরদাস্ত করা হবে না। তিনি লিখেন, ১৯৮৪ সালের আইন অনুযায়ী প্রতিটি ধর্ম নির্দিষ্ট সময়ে একটি মাত্রা পর্যন্ত শব্দ করতে পারবে। মুসলিম সম্প্রদায় আজান সম্প্রচার করতে পারবে এই কারণে যে এখন ২০২০ এবং আমরা সব ধর্মকে সমানভাবে বিচার করি।।

রবি হুদা একজন সনদধারী অভিবাসন উপদেষ্টা। ইসলামফোবিক দৃষ্টিভঙ্গির জন্য সরকার তার এই লাইসেন্সও বাতিল করে কিনা তা দেখার বিষয়।

সূত্র : জাকার্তা রিপোর্টার

জাগো প্রহরী/ফাইয়াজ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য