ঈদের পর মাদরাসাগুলোর দ্বার উন্মুক্ত করে দিন : আল্লামা মাসঊদ



জাগো প্রহরী : মসজিদগুলোর মতো দ্বীনী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও খোলে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান, ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম, শাইখুল হাদীস আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ।

তিনি বলেন, আমি সীমিত আকারে হলেও মসজিদ খোলে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলাম। মসজিদের দ্বার উন্মুক্ত করে দেয়ায় সরকারের সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। মসজিদের মতোই দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ কওমী মাদরাসাগুলোকে খোলে দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। দ্বীনী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো ইলম ও আমলের মারকাজ। যেখানে মহান আল্লাহর স্তুতি গাওয়া হয়। আল্লাহ তাআলা বলেছেন, জল–স্থলে বিপর্যয় মানুষের কৃতকর্মের ফল। সূরা রুম : আয়াত ৪১। এই মানুষকে আল্লাহর দিকে ফিরিয়ে আনতে প্রয়োজন এই দ্বীনী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর স্বাভাবিক অগ্রযাত্রা। যত দ্রুত দ্বীনচর্চার মারকাজ খোলে দেয়া হবে তত দ্রুত আল্লাহ তাআলা বালা মসিবত থেকে দেশকে রক্ষা করবেন।

বুধবার (০৬ মে ) রাজধানীর বারিধারা নিজ বাসভবন থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে মাওলানা সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী রহ.-এর খলীফা শাইখুল হাদীস আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ এ আহ্বান জানান।

দেশের দ্বীনদরদি মুসল্লিদের উদ্দেশে আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, মসজিদ খোলে দেয়ায় আমাদের যেমন আনন্দ হচ্ছে তেমনি আমাদের অসতর্কতায় যেনো করোনা রোগ ছড়িয়ে না যায়। আমরা সতর্ক থাকবো। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই মসজিদে যাবো ইনশাআল্লাহ। দেশ ও মানুষের স্বার্থে আমরা কিছুতেই অসতর্ক হবো না ইনশাআল্লাহ।

আল্লামা মাসঊদ বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাদরাসা পরিচালনা করা কঠিন কিছু নয়। সতর্ক থেকে মাদরাসা পরিচালনা করা সম্ভব। কারণ মাদরাসাগুলোর বেশির ভাগ স্টুডেন্ট আবাসিক থাকে। রাস্তায় বের হয়ই না। সুতরাং মাদরাসা শিক্ষার্থীরা ঝুঁকিমুক্তই পড়ালেখা করতে পারবে বলে আমরা মনে করি।

কওমী মাদরাসার পড়ালেখা শুরু হলে দেশের জন্যই মঙ্গল হবে বলে মন্তব্য করেন আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ।

জাগো প্রহরী/ফাইয়াজ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য