আম্ফানের প্রভাবে মেঘনা উত্তাল, উপকূলজুড়ে আতঙ্ক


জাগো প্রহরী : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় আম্ফান উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে। এর প্রভাবে উত্তাল হয়ে উঠেছে মেঘনা নদী। ঝুঁকিতে রয়েছে উপকূলবর্তী এলাকার মানুষ।

আজ বুধবার (২০ মে) সকাল থেকে লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীতে তীব্র স্রোত ও প্রবল ঢেউ উঠছে। বাতাসের গতিবেগ  বৃদ্ধি পাওয়ায় উপকূলজুড়ে মানুষের ভেতর আতঙ্ক বিরাজ করছে। একই সঙ্গে রয়েছে ভাঙন আতঙ্ক।

আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে লক্ষ্মীপুরকে ১০ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

এদিকে আম্ফানের প্রভাবে উত্তাল হয়ে উঠেছে মেঘনা নদী। গত দুই-তিন দিনের চেয়ে আজ পানির উচ্চতা প্রায় তিন ফুট বেড়েছে। প্রবল ঝড়ো হাওয়া বইছে উপকূলে। একইসঙ্গে মেঘনা উত্তাল হয়ে পড়ায় উপকূলে ভাঙন আতঙ্ক বিরাজ করছে। জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপকূলের বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে বলা হয়েছে। কিন্তু খাবার না দেওয়ার অভিযোগে আশ্রয়কেন্দ্রে আসা মানুষগুলো আবার বাড়িতে ফিরে যাচ্ছে।

মেঘনা উপকূলীয় এলাকা কমলনগরের মতিরহাট, বাত্তিরখাল ও রামগতি উপজেলায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মঙ্গলবার (১৯ মে) মেঘনার পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ১ ফুট বেড়েছিল। এছাড়া রাতভর বিভিন্ন স্থানে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হয়েছে। আজ  বুধবার সকাল থেকে মেঘনা উত্তাল হয়ে উঠেছে। পানির উচ্চতা বেড়েছে প্রায় তিন ফুট। স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি উচ্চতার ঢেউ আঁঁচড়ে পড়ছে উপকূলে। এতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে উপকূলজুড়ে।

বেলা ১২টার দিকে প্রবল বাতাস ও নদীর পানির ঢেউয়ের আঘাতে রামগতিঘাটে একটি মাছ ধরার নৌকা ভেঙে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে।

অন্যদিকে সারা বছরই কমলনগর উপজেলার উপকূল মেঘনার ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। এই উপজেলার লুধুয়া, ফলকন, চরকালকিনিসহ মেঘনার বিভিন্ন এলাকায় ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। বিলীন হয়ে গেছে অনেক ঐতিহ্যবাহী বাড়ি, সরকারি-বেসরকারি বহু স্থাপনা। প্রতিদিনই ভাঙন আতঙ্কে দিন কাটে এই উপকূলের বাসিন্দাদের। 

আম্ফানের প্রভাবে মেঘনা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। এতে ভাঙন আতঙ্ক বিরাজ করছে উপকূলজুড়ে। এ কারণে নিজের ভিটেমাটি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে রাজি হচ্ছে না উপকূলের মানুষ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৪০ বছরেও লক্ষ্মীপুরের মেঘনা উপকূলে ভাঙন আতঙ্ক কাটেনি। জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনের জনপ্রতিনিধিরা নদী শাসনের জন্য কাজ করবে বলে ভোটারদের আশ্বাস দিয়ে আসছে। কিন্তু ভোট শেষ হয়ে গেলে তারা ভুলে যায় নদী শাসনের কথা। আবার উপকূলের অসহায় মানুষগুলোর পাশেও দাঁড়ায় না প্রতিশ্রম্নতিবদ্ধ জনপ্রতিনিধিরা।

কমলনগর উপজেলার লুধুয়া এলাকার বাসিন্দা আরিফ হোসেন বলেন, মেঘনায় প্রবল স্রোত বইছে। এতে উপকূলের বিসিত্মর্ণ এলাকা তলিয়ে যেতে পারে। বুধবার সকাল থেকে থেমে থেমে প্রবল বেগে বাতাস বইছে। কিছুক্ষণ সূর্যের আলো দেখা যাচ্ছে, আবার কিছুক্ষণ পুরো এলাকা অন্ধকার হয়ে যাচ্ছে। সবমিলিয়ে আতঙ্কে রয়েছে উপকূলের মানুষ। 

জাগো প্রহরী/গালিব

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য