যুদ্ধবিরতির মধ্যেই ইয়েমেনে ২০০ বার হামলা চালাল সৌদি

ইয়েমেনি সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইয়াহিয়া সারিয়ি

জাগো প্রহরী : ইয়েমেনি সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইয়াহিয়া সারিয়ি ও ইয়েমেনে সৌদি জোটের বিমান হামলা।

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই সৌদি নেতৃত্বাধীন আরব জোট গত সপ্তাহে দারিদ্র্যপীড়িত ইয়েমেনের ওপর এ পর্যন্ত ২০০ বারের বেশি বিমান হামলা চালিয়েছে।

যদিও করোনার কারণে বিপর্যস্ত বিশ্বে যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দিয়েছিল সৌদি।

বৃহস্পতিবার ( ১৬ এপ্রিল ) ইয়েমেনি সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইয়াহিয়া সারিয়ি এ তথ্য জানিয়েছেন বলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলমানার।

জেনারেল ইয়াহিয়া বলেন, গত ৯ এপ্রিল যুদ্ধবিরতি ঘোষণার পর এ পর্যন্ত ইয়েমেনের বেশ কয়েকটি শহরে ৩২ স্থল ও ২৩০টি বিমান হামলা চালিয়েছে সৌদি জোট। সৌদি নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের বিমানগুলো দফায় দফায় উত্তরাঞ্চলীয় আল-যাওফ, মধ্যাঞ্চলীয় মারিব ও বাইদা প্রদেশ এবং দক্ষিণাঞ্চলীয় তায়িজপ্রদেশে এসব হামলা চালিয়েছে। যুদ্ধবিরতি ঘোষণার পরও সৌদি আরবের এসব হামলার জবাব দেবে ইয়েমেন।

তিনি বলেন, দেশকে রক্ষায় এ ব্যাপারে বাস্তবভিত্তিক পদক্ষেপ নেবে ইয়েমেনের সামরিক বাহিনী।

ইয়েমেনের জেনারেলের এমন হুশিয়ারির মধ্যেই বৃহস্পতিবার হুদাইদাপ্রদেশের একটি আবাসিক এলাকায় সৌদি জোটের বিমান থেকে হামলা চালায়। এতে বেশ কয়েকজন বেসামরিক নাগরিক হতাহত হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো।

উল্লেখ্য, করোনার ভয়ে গত ৮ এপ্রিল ইয়েমেন যুদ্ধে সৌদি আরব ও তার মিত্ররা একতরফা যুদ্ধবিরতি পালন করবে বলে ঘোষণা দেয়।

প্রসঙ্গত ইরান সমর্থিত হুতি বিদ্রোহীরা দেশটির রাজধানী সানাসহ গোটা দেশ দখল করলে ২০১৪ সাল থেকে ইয়েমেন সংঘাত শুরু হয়।

২০১৫ সালে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট যখন হুতিদের দমনে অভিযান পরিচালনা করে, তখন থেকে দেশটিতে সহিংসতার পরিমাণ বেড়ে যায়। এ সংঘাতের ফলে হাজার হাজার বেসমারিক ইয়েমেনি মারা যান। এ ছাড়া সংঘর্ষের ফলে দেশটির মানবিক বিপর্যয় নেমে আসে। এতে লাখ লাখ মানুষ অনাহারে দিন কাটান।

জাগো প্রহরী/মাসউদ আইয়ুবী

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য