আবারও মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়াচ্ছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী



জাগো প্রহরী : মিয়ানমারের পশ্চিমাঞ্চলীয় চিন ও রাখাইন রাজ্যে এখনও মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ দূত ইয়াংহি লি। এ দুটি রাজ্যে চলমান মানবতাবিরোধী অপরাধের যে আভিযোগ রয়েছে তার তদন্ত চেয়েছেন তিনি।

বুধবার (২৯ এপ্রিল) জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে জানানো হয়, বিশ্ব যখন প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ব্যস্ত, তখন মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রাখাইন রাজ্যে সাধারণ জনগণের ওপর তাদের অত্যাচারের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে বলে জানিয়েছেন ইয়াংহি লি।

তিনি বলেন, যুদ্ধ বন্ধের যে আহ্বান জানানো হয়েছিল তা মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এবং আরাকান আর্মি কেউই মানছে না, যা চিন ও রাখাইন রাজ্যের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ওপর চরম সংকট বয়ে এনেছে। এখানে পদ্ধতি অনুসরণ করে আন্তর্জাতিক মানবিক আইন ও মানবাধিকার মৌলিক বিষয়গুলোকে লংঘন করা হচ্ছে। আর এটি করা হচ্ছে চিন ও রাখাইন রাজ্যের সাধারণ মানুষের ওপর, যা মানবতাবিরোধী অপরাধ। সংঘাতে অংশ্রগহণরত সকল পক্ষকে জনগণকে সুরক্ষা দিতে হবে।

ইয়াংহি লি বলেন, কোনো জবাবদিহিতা না থাকায় তারা ইচ্ছামতো কার্যক্রম পরিচালনা করছে। দশক ধরে পরিকল্পিভাবে জনগণের কষ্ট বাড়িয়েছে। আমরা সবাই জানি ২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে মিয়ানমার সেনাবাহিনী কী করেছে। আর এখন তারা রাখাইন, রোহিঙ্গা, মরো, দিয়াজেন্ট ও চিনসহ অন্যান্য এলাকার সাধারণ মানুষের ওপর সহিংসতা চালাচ্ছে। এ অভিযোগগুলোর অবশ্যই আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী তদন্ত করে দোষীদের জবাবদিহিতার আওতায় নিয়ে আনতে হবে।

জাগো প্রহরী/ফাইয়াজ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য