করোনা সংকটকালে সরকারের আরও কী করণীয় ?


মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী ৷৷

করোনা ভাইরাস মহামারী কোভিড১৯ বাংলাদেশে প্রকাশ পাওয়ার পর এখন সেটি তৃতীয় ধাপে অবস্থান করছে। সরকারের পদক্ষেপ এ পর্যন্ত বেশ ইতিবাচক ও বাস্তবধর্মী ছিলো। শুরুতে আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সমীপে কিছু প্রস্তাব রেখেছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ ধাপে ধাপে এসবের অনেক অংশ বাস্তবে দেখে ভালো লেগেছে। এখন আরো দুয়েকটি কথা বলতে চাই।

১. সরকারের সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষা নীতি আরো আন্তরিকভাবে পালনে সবাইকে বাধ্য করা। সচেতন ও সতর্ক করতে থাকা।

২. সাহায্য কর্মসূচি প্রায় ব্যর্থ হয়ে গেছে।  দ্রুত এসব প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে সম্মিলিত বাহিনীর মাধ্যমে পরিচালিত করা। নিয়ম রক্ষার জন্য স্থানীয় সরকার  ও দলীয় নেতা কর্মীদের সুপারিশ বা কোনটাকে গুরুত্ব প্রদান।

৩. আটকে পড়া, ভাসমান বা অসচেতন মানুষকে আইডি কার্ড বা তালিকাভুক্তি ছাড়াও সাহায্য প্রদানের ব্যবস্থা।

৪. যেসব জনপ্রতিনিধির ভূমিকা প্রশংসনীয়, তাদেরকে পুরষ্কৃত করা আর যারা অন্যায় অবিচার করছে তাদের দ্রুত বরখাস্ত করা এবং সময়মত পরীক্ষিত ভালো লোক নিয়ে আসা।

৫. আর্মি ও রেবের অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে, তাদের সাথে জনগণের মধ্যে যারা সাহসী উদার ও মানবিক ভূমিকা রাখছেন, ভবিষ্যতে তাদের মূল্যায়ন করা এবং কল্যাণমূলক কাজের সুযোগ দেওয়া।

৬. বিশেষ করে উল্লেখ করবো পুলিশ বাহিনীর নাম। সব কর্মকর্তা ও সদস্য এবার তারকার মতো ভূমিকা রাখছেন। সত্যি সত্যিই নিজেকে উৎসর্গ করে তারা জনগণের বন্ধু হওয়ার প্রমাণ দিতে সক্ষম হয়েছেন।

৭. চিকিৎসা, নিরাপত্তা,শৃঙ্খলা, ধর্মীয় জীবনের অমূল্য সেবা প্রদানের দায়িত্ব পালন ও  সাধারণ জনসেবায় নানাভাবে  আত্মোৎসর্গকারী সকল নাগরিকদের, বিশেষত সকল কর্মযজ্ঞের কর্ণধার মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্য অনেক দোয়া ও মুবারকবাদ।

৮. আগামী দিনের অর্থনীতি, ধর্মীয়- মানবিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক পরিপূরণ ও সামগ্রিক পুনর্গঠন বিষয়ে সরকারের সেটআপের পাশাপাশি বাস্তব ধর্মী বিশেষজ্ঞ পর্যায় থেকে মূল্যবান পরামর্শ গ্রহণ ধারণাতীত সুফল এনে দিতে পারে।

৯. পরিবর্তনের প্রভাব সারা বিশ্বেই পড়বে, এ বাস্তবতায় লাগসই ও স্মার্ট কর্মকৌশল নির্ধারণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রধানমন্ত্রী পারবেন এবং তাকে সেটা পারতেও হবে। তবে  মন্ত্রীসভায় তার সহকর্মীদের অনেককে নিয়েই জনগণের মনে ঘোরতর সন্দেহ। তিনি এবিষয়ে অভিজ্ঞ। আশা করি, কালক্ষেপণ না করে কিছু সত,অনুগত ও সমচিন্তার কাজের লোক বাছাই করে নেবেন।

১০. সবাইকে নামাজ দোয়া এবং প্রার্থনা র কথা বলে এবং অনিয়ম দুর্নীতি লুটপাট সহ্য করা হবে না মর্মে ঘোষণা দিয়ে এবং এবারকার সংকট মুহূর্তে আন্তরিক ভূমিকায় তিনি জাতির অভিভাবকসুলভ আচরণ ও ভাবমর্যাদার প্রমাণ দিয়েছেন। তার গোটা টিমটির পূর্ণ সুপথ অবলম্বন ও জাতির সংকট মুক্তির জন্য সকলেই কায়মনোবাক্যে আল্লাহর কাছে দোয়া করবেন। মহাবিপদ সংকেত এখন বিশ্বের মানুষের সামনে সমুপস্থিত। আল্লাহর কাছে পূর্ণ আত্মসমর্পণ ছাড়া উপায় নাই। তাই নামাজ বন্দেগি তওবা ইস্তেগফার ও দোয়াই এখন রাজা প্রজা সবল দুর্বল সব মানুষের একমাত্র পথ।

লেখক :
মহাপরিচালক, ঢাকা সেন্টার ফর দাওয়াহ রিসার্চ এন্ড কালচার।
সভাপতি, দেশ অধ্যয়ন কেন্দ্র।

জাগো প্রহরী/গালিব

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ